Tuesday, 31 August 2010

নিজের পরিভাষায়

নিজের পরিভাষায় মানুষের মন


বিজয় করা সব সময় সম্ভব নয়

স্বপ্ন দেখা আর স্বপ্ন দেখানো

দুইটি বিভেদ রয়েছে,চানক্য সর্বদা

উচ্চ শিখরে থাকবে কোন জরুরি নয়

যা সামনে রয়েছে সেটাই বাস্তবিক

বিতর্কিত দর্শন নিয়তি বদলায় না

মিছিলের পরিনিতি নিরবতা,যাদের হাতে

কুচক্র ছিল, তারা আজ কুরুক্ষেত্রে

ধরাশায়ী, শঙ্খনাদ ও আর্তনাদ

সামান্য অন্তর, মেঘের গর্জনে

বৃষ্টির আগমন, কোনো জরুরি নয়

অশ্বথামার অন্ত, রাজনীতির পরাকাষ্ঠা

যারা আজ পদতলে খুঁজে ঠিকানা

কাল সিংহাসনে উঠতে পারবে না,

এমন কোন অনুবন্ধ নাই, যুগ তোমার

আমার মতান্তরের বাইরে

আর্তনাদ উঠলে নভ, জল, স্থল

সব চুরমার হবে এক দিন

যারা মহাসম্মেলনের পুরোধা

সর্ব প্রথম হবে মৃত্যুমুখী --

সম্প্রতি যুগের, মৌন ভীষ্ম পিতামহ এবং

অন্ধ রাজনীতির, অন্ত অবশ্য নিকটতম //

--- শান্তনু সান্যাল

Sunday, 29 August 2010

সতত অনুসন্ধান

নিস্তেজ, ভাষাহীন, দুটি অপলক চক্ষু


কী যেন খুঁজে সারাটা সময়,

রেলএর লাইনে,রাস্তার দু ধারে,

মন্দিরের ভাঙা সোপানে, শুধুই খুঁজে যায়

মানুষ কিম্বা অমানুষ, কেও হাসে, কেও দুঃখিত,

গ্রীষ্ম, শীত অথবা কাল বৈশাখী -- দুই নয়নে

ঝরে যায় প্রাচীন জমানো ব্যথা -- অবশ্যই

অশ্রু ধারার চিহ্ন নাই, অদৃশ্য জল স্রোত --

ভুমিকম্পিত স্মৃতির প্রান্তর, লোকেরা বলে

পাগল মহিলা, বলা তো সব থেকে সহজ

শুনেছি না কি, কুলীন কোন বংশের বধু

ছেলে আমেরিকায় কী লন্ডনে ----

সবাই তো আছে, শাখা -প্রশাখা

জানি না কী যে হারিয়ে গেছে ওনার,

নিস্তব্ধ মুখে তবু ও কোন অনুতাপ দেখি না

শুধুই খুঁজেন কখনো মাটিতে আবার

কখনো নীল আকাশে, সতত অনুসন্ধান //

---- শান্তনু সান্যাল

Thursday, 26 August 2010

নিজস্ব বলে কিছুই নাই

নিজস্ব বলে কিছুই নাই


প্রতিবন্ধিত রেল লাইনের দুই ধারে

কিছু চেনা অচেনা মুখ, জর্জরিত, ক্লান্ত

শুন্য চোখে শুধুই চেয়ে থাকে -

ঝগ ঝগ সুন্দর এক উচ্চ অট্টালিকা

প্রাঙ্গনে মৌসুমী ফুলের বাহার,

বস্তির সীমান্তে গর্বিত মুদ্রায়-

দাপটের সঙ্গে দাড়িয়ে আছে /

এলোমেলো, অস্পষ্ট চোখের ভাষা

তারা যেন কিছু বলতে চায়

কিম্বা কিছু ভুলতে চায়

ওদের নিজস্ব বলে তো আর

কিছু নাই,যা হারিয়ে গেলে দুঃখ হবে /

কখনো মনে হয় -- বিলুপ্ত প্রাণীর

অস্তিত্ব থাকা বা না থাকা, কোন

প্রশ্নই উঠে না, কার এত ফেলানো সময় আছে /

রাস্তার মাঝে,উড়ান পুলের নিচে,

ভাঙা ফুট পাথে,বৃহত ভাঙান গায়ে জড়িয়ে

সাঁঝের শেষে, পুরাতন কাগজের বিছানা

তারা ঘুমিয়ে পড়ে,

স্বপ্ন মিছিল ফিরে যায় মধ্য নিশীথে,

নিজস্ব বলে তো আর কিছু নাই-

তারা স্বপ্ন দেখা বাদ দিয়েছে -

বহু কাল আগে //

-- শান্তনু সান্যাল

Wednesday, 25 August 2010

উদ্ঘোষিত আর্যবৃত

এই ভগ্ন দেবালয়ের প্রস্তর


আবার হউক জাগৃত

গোধুলি তে শঙ্খ ধ্বনি

তুলসী তলে পঞ্চ প্রদীপ

নির্ভয় সান্ধ্য বন্দনা উদ্ঘোষিত আর্যবৃত

...গুঞ্জরিত বিজয় গান

মহাসিন্ধুর উচ্চ তরঙ্গে

ঋচা অভিমন্ত্রিত বহে জ্ঞানামৃত //

- শান্তনু সান্যাল

Sunday, 15 August 2010

মেরু দন্ড বিহীন সমাজ

মেরু দন্ড বিহীন সমাজ


পুর্বাগ্রাহে গ্রসিত

এক পথিক বহু মুখী বিষধর

পূজা স্থলে করবদ্ধ

জীবন দানের করুনামুখি

...দিগ ভ্রমিত দর্শন

উন্মাদিত অনুযায়ী

রক্ত ও গরল অবিরাম প্রবাহিত

অদৃশ্য শক্তির জন্য

মানব রুধির

জানি না কি ভাবে

ঈশ্বর মহান ----

মানুষ মানুষের জন্য

মায়ের ভাষা এক দিন বলেছিল

আজ এই পথে ছড়ানো রক্ত

তোমায় প্রশ্ন করে -- কোথায়

দেখি তোমার মহান ঈশ্বর

যে করুনা করে -- জবাব চাই //

-- শান্তনু সান্যাল

Tuesday, 3 August 2010

বিরল কুসুম


বিরল কুসুম



যা ছিল কাছে দেহ ও প্রাণে


সবটাই তো দিলাম তোমায়


অবশেষ কিছুই নাই ----


ওই যেখানে আকাশ ও ধরণী মিলে


মহাসাগর হারায় বহু উচ্চ তরঙ্গ


ঝিনুকের বুকে লিখে যায়


প্রনয় লিপি -- অদৃশ্য অশ্রু বিন্দু,


পাহড়ের গায়ে ফাল্গুনী অগ্নিশিখা


দগ্ধ পায়ে খুঁজেছি বিলুপ্ত হৃদ,


সে এক বিরল বন্য কুসুম


অজস্র প্রনয় সুগন্ধে ভরা


যুগ যুগান্তরে ও যার অশেষ সুরুভি


নভ- জল - ভূ কে সুবাসিত করে,


খুঁজেছি অবিরাম--


যদি পেতাম তোমায় অবশেষে


প্রীতি শুভেচ্ছা সহ দিতাম /


--- শান্তনু সান্যাল