Tuesday, 31 May 2011


জোছনার গায়ে  


অনুকম্পাবিহীন জগতে বহুবার
ধর্ম যোদ্ধারাই  লুন্ঠন করে গেছে  মনের 
মন্দির, দিয়ে গেছে ঘাত প্রতিঘাত 
নির্দোষের মাথায় দোষারোপ  
তালিময় বস্ত্র বন্ধু নয় কোনো জন্ম দাগ,
 প্রায়ই বসে থাকে আহত ভাবনা 
আদালতের ওই ভাঙা সিঁড়ির উপরে, 
প্রমানের কাগজ নিয়ে হাতে 
মৌসুম ফিরে চায় না সিক্ত চোখের স্বপ্ন,
 উচ্ছ আসীন সেই অভিশংসক
অনেক সময় অবিরল দিয়েছে মুক্তির 
বক্তৃতা, শুনিয়েছে ক্রান্তির কবিতা 
আঁধারে সে আবার দেখি বিক্রয়ের পথে,
দাড়িয়ে আছে অন্ধ গলির সীমান্তে 
 সেই পন্যবিনিময়ের আদিম ভুবনে !
তথাকথিত ত্রাণকর্তা সেই রাতে 
দিল মশাল আমার প্রতিবেশীর হাতে,
বারংবার শিকারে অগ্রসর সেই 
মুখোশ ধেয়েছে পঙ্গু তৃণ ভোজির পিছনে,
জঙ্গলের এই আইন মোছা যায় নি 
কোনদিন, ঘা  দিয়ে মলমের মাখামাখি,
সুযোগের শোধে সেই আঁখি দিয়েছে
বিশ্বাসঘাতকতা বহুবার বন্ধু,
তাপ্পি খুলে যাওয়ার ভয়ে ভীরু মন নিজেই 
উলঙ্গ হয়েছে  অনেক সময়, 
জীবনের বাস্তবিকতা বড়ই কঠিন,দুরূহ 
তবুও কালরাত্রি বলে স্বপ্ন মরে না কোনদিন ,
সেই অলৌকিক বিহানের সন্ধানে 
মন চায় ঘুমোতে কিছু ক্ষণ জোছনার গায়ে,
-- শান্তনু সান্যাল 

পলকা আবেগ 


ভালবাসায় কোনো চুক্তি ছিল না 
বাধ্যতার প্রশ্ন উঠে নি 
পলকা পানপাত্রে হাত দিতে গিয়ে 
যদি স্বপ্ন ভেঙে যায় সহসা 
হাতলের বা দোষ কি -
নিখুঁত ভাবে, সূর্য্য অস্তাচল লিখে 
গেছে আকাশে, কাঁচের আবরণে 
হাত দিও যেন সাবধানে,
 লুপ্ত ফাটলে ছিল হয় তো কিছু 
রহস্যময়ী নিঃশ্বাস, মৌন কাহিনী !
ঠুনকের শব্দে ছিল চাপা ক্রন্দন,
চোখের ওই নদীর তীরে 
এখনো দেখি গ্রীষ্মের গুটিয়ে যাওয়া 
ভীরু জলরাশি, বহে কি স্থির 
বলা বড়ই মুশকিল,কিন্তু 
ওই ঝিনুকি চোখে হারায় নি এখনো 
মুক্ত মনি, হয় তো তৃতীয় নেত্রের 
কপাট খুলে গেছে মৌসুমের 
মধ্য রাতির তন্দ্রা,
সকালের পথচারী গেছে ফিরে 
পার্কের ফাঁকা বেঞ্চে শালিকের 
বিচলিত চাওয়া, কৃষ্ণ চূড়া ঝরে 
চলেছে এক এক,বাতাসে এখনো আছে 
কিছু অদৃশ্য মধু কম্পন,
দুপরের অলস বেলায় মন কি খুলে 
চলেছে বহু শৃঙ্খল গিঁট,
কিংবা আটকানো নজরের মরিচিকা,
ফেলে চলেছে হৃদয় মিহি বোনা 
ভালবাসার জাল, বলা মুশকিল 
ঠিকই ত সাঁঝ লিখে যায় নি 
একাধিকারের চুক্তি ----
--- শান্তনু সান্যাল 

Saturday, 28 May 2011


উড়ন্ত আবেগের মেঘ 


দমকা ঝড়ের সেই তমসাবৃত রাত্রি 

মন্ত্রমুগ্ধ করে গেছে জীবনের শুন্যতা,

সহসা বিস্মিত মনের আঁধার -
আকাশীয় ক্ষনিক আলোয় গেছে 
পরিপূর্ণ ভরে, পুলকিত লোম ছিদ্র !
গেছে ভেঙে নদীর সর্ব পাষাণী তটবন্ধ,
অপ্রত্যাশিত রোমাঞ্চে প্রেমের আবেগ -
যেন প্রশান্ত মহাসাগরে ডুবেছে বৃহৎ
হিমশৈল,তীরের সমস্ত উপত্যকা 
হটাত জল প্লাবিত, মহৎ ভাস্যভূমি !
তলদেশে যেন দীর্ঘ্য নিঃশ্বাস,
প্রবাল দ্বীপে জাগৃত রঙের খেলা,
উদ্ভাসিত হৃদয়ের বন্যা নিয়ন্ত্রণ বিহীন,
বুকের নিম্ন ভাগে শীতাগ্নির উদয়
ভুমিগ্রস্ত ভাবনার কন্দে অদৃশ্য অঙ্কুরণ,
 জীবনের ছন্দে অনাম সুবাসিত গন্ধের 
অতিক্রমণ, ইন্দ্রজালিক সানিদ্ধ্যে 
পুংজাতীয় মকরন্দের বিস্ফোরণ -
অবাক মায়াবী রাত চেয়ে রইলো শুধু 
উড়ন্ত শিমুল তুলো কিংবা আবেগের 
সারি সারি রুপালি মেঘের উড়ে যাওয়া,
চাঁদের পার্শ্বে গেছে তারা মিশে,
উদভাসিত এক বিরাট বলয়ের পরিনিতি !
ঝিমন্ত চোখে এখন বিন্দু বিন্দু 
শিশিরের সংগ্রহ করে থাকে -
প্রণয়ের শেষ প্রহর !
--- শান্তনু সান্যাল 
 

Friday, 27 May 2011



আদ্র রাত্রি

পুনঃ জ্বলুক অনল,কাল বৈশাখীর
অসমাপ্ত রাত্রি বহিবে সকাল পর্য্যন্ত
নিবিড় অন্তরঙ্গের উপাদান
আসক্ত গ্রন্থির  উন্মুক্ততা
নৈসর্গিক ঢালু পথে বহে তরলতা,
সেই পৃথিবী সৃজনের সাঁঝে
দিয়ে ছিলুম প্রতিশ্রুতি, আজ
প্রন্তবর্তীত হয়ে উঠেছে প্রেমের রূপ
অসীম ,অপরিভাষিত এক উপাসনা,
ঢেলে গেছে জীবনের অঙ্কুর
পাষাণে দেখি তাই সজীবতার অংশ,
খুলে দাও সকল বাতায়ন, লুপ্ত
লৌহ কপাট,দেবত্বের আলোক রশ্মি !
অবিরাম কড়া নড়িয়ে যায়
দিবা নিশি, মন্থিত আত্ম পিযুষ,
সুদূর অরণ্যে, কাষ্ঠ সেতু এ আজ 
জোনাকিদের  সপথ সমারোহ,
উদ্ভাসন ক্রমশঃ উলম্বিত
আচ্ছাদন মুখী, সে এক বিহঙ্গম দৃশ্য !
বন্য কুসুমের বৃহত পুঞ্জ সুরুভি,
নেত্র
প্রণোদনা মূলনীতির বাহিরে
চিরদিন, মৌন ভাবনার মাঝে র -
স্থান তরঙ্গ ময় জলাভূমি,
স্ববিম্বে বিচলিত মৃগের তৃষা,
চাঁদের জাদু ঢেলে রয় অতিরিক্ত
সম্মোহনের জোছনা, জামিরা নিশীথ
ঝড়ের আরোহণ ক্ষনিক, নিশান্তে
এক পশলা বৃষ্টি , স্বপ্নের অঙ্কুরণ, প্রেম
জেগে থাকে যেন প্রাচীন আগ্নেয় গিরি,
-- শান্তনু সান্যাল 

Thursday, 26 May 2011


পুনর্লিখন

জীবন চলমান থামে না এক জায়গায়
পৃষ্ঠ বদলিয়ে নিন, নতুন পাতায়
মৌসুম লিখে গেছে নব স্মারকলিপি,
যাযাবর মেঘের ঝাপসা গন্তব্য !
কূল খুঁজে পায় না মনের চঞ্চলতা,
কারা চেয়ে আছে নদীর বক্ষস্থল
সাঁঝের নেমে আসার দৃশ্য !
কোনো দিন আগে ত দেখি নি, সে
সমস্ত মুখ কালের গালে গেছে হারিয়ে
জানি না তারা ছিল না কি নদী তীরে,
উড়ন্ত সেতু ছুঁয়ে যায় আকাশ পথে
শুনেছি বৃন্দ বিলাপ অমাবস্যার রাতে
করে থাকে ধ্বন্স স্তূপ,জীর্ণ মন্দির
ইতিহাসের পুনরাগমন নাকি
অবশ্যম্ভাবী,কখন,কি ভাবে,বলা কি
সহজ,কিন্তু ভবিষ্যৎএক রহস্যময়
প্রহেলিকা,নদীর প্রতিঘাত, তট
পরিবর্তন দুখদায়ী, এখানেই স্বপ্নের
সৃষ্টি জাগিয়ে রাখে সুপ্ত
মহত্বাকান্ক্ষিক অভিলাষার চর,উপরে
মরু ভিতরে বহে যায় লুপ্ত প্রবাহ,
গ্রহের গ্রহন ক্ষনিক অন্ধকার,
যারা পার করে গেছে ছায়াগ্রস্ত অন্তরিক্ষ
তারাই আজ স্থায়ী বাসিন্দা -
চন্দ্রলোকে, উদ্ভাসিত জগতে করে তারা
আলোকের গান, গর্ভিত প্রাণ
লিখতে চায় ইতিহাস পুনঃ পুনঃ !
প্রেরিত করে যায় মৃত সংস্কৃতি,
জাতীয় অভিমান,বেদের দুরূহ ঋচা,
জয় উদঘোষিত করে পূর্ব পুরুষের কন্ঠ,
তারা নমন মুদ্রায় করে বিজয়
আত্মসাত, বিনম্র ভাবে ঝরে আকাশ
কুসুম, পৃষ্ঠ যায় বদলিয়ে,
বাতায়নে রেখে যায় স্মৃতি গন্ধ --
-- শান্তনু সান্যাল
 








Monday, 16 May 2011

নতুন গ্রহের সন্ধানে -

নবীন গুরুত্বে সৃষ্টির উদ্ভাসন
অসাধারণ মায়ায় জড়িত সে ভূমি
স্বপ্নের ওপারে করে বিমোহিত
শ্বাসরোধের মাঝে এই অমূর্ত প্রেম
চাহে শিকল মুক্তি, এক ভিন্ন সন্ধ্যা 
মৃত ভাবনার পুনর্জীবন
ওই সরু সোনালী রেখায়,কিছু
তুষার বিন্দু চেয়ে আছে
জীবনের দিগে কিছু ক্ষণের জন্য
এক মধুরিম উচ্ছ্বাস, অল্প
মুচকি হাসি, বৃন্তের অবহিতি, ভয় -
মুক্ত ফুলের ফুটে যাওয়া !
শিশুদের বর্ষাগানে ভিজে উঠেছে
মসজিদ লাগোয়া দেউলের প্রাঙ্গন,
সীমাবিহীন বহে যায় জলধারা
আকাশ যেন এক মিথক কল্পনা,
রঙ্গধনুর সেতু বেয়ে চাঁদের উঠে আসা
অভিভূত করে যায় মনের
গভীরতা, অথৈ বিশ্বের দর্শন, চেয়ে
থাকে এই মিলন বিন্দু !
আস্তে আস্তে শিশুদের মিষ্টি কলরব
হয় উঠে সাঁঝের তারক বৃন্দ
তারা কোনো প্রভেদ বুঝে না
শুধুই খেলে যায় মেঘের আড়ালে লুকোচুরি.
--- শান্তনু সান্যাল 

Wednesday, 11 May 2011

প্রতিবিম্ব



সুদূরে ছায়াময় নাবিক
বেয়ে যায় জীবন খেয়া অবিরাম
অদৃশ্য ছন্দময় ধারা বহে মন্থর বেগে
যেন নিষ্প্রভ বিন্দু বেসে চলেছে
ভাবনার প্রবাহে
মুহানার মোহে অগ্রগামী নদী
অবহেলিত তলানির ব্যথা
দীর্ঘ নিঃশ্বাস ফেলে তটবন্ধ
বয়প্রাপ্ত রাত্রির বুকে হিমল প্রহার
স্থির সংবেদনার হটাত -
চক্রবাতীয় জাগরণ,
দ্রুত পাকে ঘুরে স্বপ্ন বলয়
খন্ডিত জলরাশির বিষন্নতা,
উদ্বেলিত মনের আঁধার -
করুন সুরে নদী - উপত্যকা, করে
শেষ প্রহরে শোকের বৃন্দ গান,
তীরের অনাম শ্বেত পুষ্পের শাখা,
ঝরিয়ে যায় অনুকম্পার অশ্রু
পূর্ণ শশী মুক ভাবে চেয়ে রয়
নদীর তুরীয় আত্ম মন্থন সারা রাত !
অপরিচিত প্রতিবিম্ব জলের মাঝে
করে রহস্যের রচনা,
দেখি মনের সমস্ত লালসা, ক্রমশঃ
নিমজ্জনের পথে, পূর্ণ বিসর্জনের মুখে
ঝরিত শ্বেত কুসুমের মালিকা
ধীরে ধীরে পীত বর্ণে পরিবর্তিত,
বহে চলেছে জীবন উজানের দেশে !
--- শান্তনু সান্যাল 

Tuesday, 10 May 2011



পরিত্যাগ 
জরুরি নয়, প্রত্যেক প্রত্যাশার 
আছে পরিপূর্ণতা,বয়প্রাপ্তি,পূর্ণ যৌবন ! 
ভবিষ্যবাণীরা ছিল মৌসুমী সমীরণ 
গেল বদলিয়ে জীবনের আদ্র ভূ ভাগ 
 মায়াবিনী রাত্রি উন্মুক্ত আকাশ
অভিপ্সার তারক ভেসে যায় শুন্যে 
আসন্ন ক্ষণে নিরবতা,আঁধার অসীম,
ভেঙে যায় আকাশগঙ্গা, ঝরে সপ্তর্ষি 
প্রবল আকাঙ্ক্ষা ধেয়ে যায় ভুগর্ভিত 
তরঙ্গে, খুঁজে অজানা প্রবাহের প্রস্থান,
 এক অশেষ অনুক্রম,উদ্দাম প্রক্রিয়া !
সারি সারি ধায়িত মৃগ বৃন্দ, জল -
কুম্ভে অদৃশ্য আগ্নেয় নেত্রের সম্মুখীন 
হারিয়ে ফেলে তাহারা জীবন তৃষা,
নদী ঘাটের সোপান, উলঙ্গ গায়ে নিয়ে 
রাত্রির হিংসতা ডুব দিয়ে উঠে মন, 
মন্দিরে এখন প্রভাতের ধূপকাঠি,খুলে 
দিল কে যেন নৌকোর লৌহ নোঙর !
রাজপথে ফেলানো অপার্থিব দেহ 
চেয়ে রয়েছে শুন্য আকাশে, সূর্য্য 
ভাশ্যমান, অপ্রভাবিত চৈতন্যহীন, 
মুখ ফিরিয়ে চলেছে জনারণ্য, কিছুই ত 
ঘটে নি,মাত্র অপরিচিত রাত্রির মৃত্যু !
-- শান্তনু সান্যাল

Sunday, 8 May 2011


বাহ্য বলয় 
অন্তরে দাহ চিরস্থায়ী 
বাহ্য ভুবনে আলোর সন্ধান !
জীবনের বর্ণালী সীমাবিহীন 
নিজস্ব স্বার্থ গড়ে মহা বলয় 
অহংকারের চতুর্দিগে ঘুরে যায় 
সহস্ত্র দর্পণ দিবা নিশি -
অস্পষ্ট প্রতিচ্ছবি,দুষিত কেন 
মরুভূমি, মুখ গুজে উঠপাখি !
বালুর ঝঞ্ঝা,মেঘের যেন আভাস,  
জীবনের কল্পিত ছায়া স্থির কিন্তু 
ইন্দ্রিয় প্রবাহ চঞ্চল দিয়ে যায় প্রতিপল 
ঘাত প্রতিঘাত, নয়নের মরিচিকা 
অদৃশ্য সে এক প্রেম,গোপন সৌন্দর্য্য !
আত্মস্বীকৃতি যেন পুরাকালীন দংশ,
নির্ঝর বিন্দু হাতের মাঝে -
মুক্ত মণি,খসে গেলে মাটির কণা, 
আকাশের পরিধি অসীম -
কপালের রেখা সীমাবদ্ধ,
চেয়ে ছিলাম করতে বিশাল সংগ্রহ 
প্রেমের প্রতিবিন্দু, হৃদয়ের সংকুচিত 
ভূমি পারি নি বুকে টানতে, 
সে গেছে ফিরে, মৌন পথে অশ্রুময় চোখে,
সুদূর ক্ষিতিজে, উড়ে যায় শ্বেত মেঘ -
বৃষ্টি বহুদূর, অনন্য প্রান্তরে -----
--- শান্তনু সান্যাল

Wednesday, 4 May 2011

পুরাতন গন্তব্য পাথর


পুরাতন গন্তব্য পাথর  
শুষ্ক মুহুর্ত, আদ্র  নয়নের পাতি 
নিঃশ্বাসে ঘনিষ্ট গন্ধ, আজ ও কি  শিশির 
ঝরে  নিশান্তে -
অল্প কিছু জোছনা  মনে হয় 
পড়ে রয়েছে দিনলিপির পৃষ্টে, 
আবছায়িত পথ, আঁধারের জেদ, 
আলোকের অনুরোধ, কি আর ক্ষতি যদি 
এখনো জ্বলে হৃদয়ে স্মৃতি প্রদীপ,
হারাবার সেই আতঙ্ক  গেছে হয় অস্মৃত ,
তবুও পথের জন্য রেখো কিছু 
দিপান্বয় বুকের স্পন্দন,
জানি গেছে ফুরায়ে মিষ্টি সে গন্ধ, 
 আর উঠে না চাঁদ চেয়ে ,ভাবনার সেই 
তরঙ্গ, তবু ও আকাশে ,চাঁদ ভুলে না ভাসিতে, 
দক্ষিণা বাতাস, জানি না আজ ও বহে কি 
পল্লব বিহীন গাছে হয় তো কিশলয় 
গেছে গজিয়ে শাখা প্রশাখায়,
ধুসর আকাশে কি ছাই রঙের প্রস্তর 
দেখা যায় কিংবা অথৈ নীলের সাম্রাজ্য 
এখনো দাপটে করে রাজত্ব,
জানি না ,নিম্ন উপত্যকায় কি অসময়ের 
বৃষ্টি ভিজিয়ে গেছে, দাহিত বাবলা বন !
ভালই লাগে ভাবতে, পাহাড়ের ওই পারে, 
বহু কাঁটাগাছ, নাকি শাপমুক্ত,
ভরে উঠেছে ফুলে ফুলে বিথীকা,
জীবনের এই বৃষ্টি ছায়ার পথে আজ ও 
মনে হয় পড়ন্ত বেলায়,
মেঘেরা নেবে এক রাত্রির আশ্রয় 
আনমনা মন খুলে রাখে পান্থশালা !
চেয়ে থাকে জানালার ভাঙা রঙ্গীন কাচ,
সাঁঝ নেমে আসে আপনমনে, হরিনের পাল 
খুঁজে বেড়ায়  গোপন ঝীল, 
পাহাড়ের ঢালু ভূমি এখন মৃগয়ার দেশ !
--- শান্তনু সান্যাল