Thursday, 30 June 2011


দেহের চন্দন 
তার প্রণয়ের ব্যুৎপত্তি ছিল লোকোত্তর
গভীর, আবেগের আগ্রহে গেছে হয়ে ধীর 
জলধির তরঙ ও পূর্ণ শশির সেই মৌন 
আলাপন, বুঝতে পারি নি উতলা মন !
অবিলম্বে হৃদয় হয় উঠতে চায় শুধুই 
চক্রাকার পাষাণ,চন্দন কাঠের ছোঁয়া 
রহস্যময়ী অনুভূতি, আদ্র  স্পর্শ যায় -
অনেক সময় মৃগ জলে হারায়ে, বিলীন 
ভাবনার গন্ধ খুঁজে মুক্তির পথ অবিরাম, 
তৃষিত নয়নে আকাশগঙ্গা ভেসে উঠে 
শ্রাবনের মহা প্রবহনেও দেহ জ্বলে 
দিবানিশি, সে এক মোহফাঁসের সৃষ্টি , 
উত্তরকালে  দিগ্ভ্রমিত পরিত্যক্ত জীবন,
দেহের কাঠ হয় উঠে না কোনো দিনেই 
চন্দন, ঝরে যায় সুগন্ধিত ভালবাসা, 
শুন্য গগনে কল্প নিরদের বুকে, অনন্ত পথে.
-- শান্তনু সান্যাল 

Tuesday, 28 June 2011


অদেখা পৃথিবী 
 হাসাতে পারি নি কোনো ও ভাবে 
তার এই বিফলতায় মন কষ্ট পায় -
কি বা করি হাসতে গেলেই চোখের 
বন্ধু গড়িয়ে আসে পথের মাঝে,
সে শুধুই ভাবে আমার লাগি দিবা 
নিশি, সরে যাওয়া এত সহজ নয় 
আজন্ম ঘিরে রয়েছে উদাসীন ওই 
দেওয়ালের পলাস্তর খসা হৃদয়,
চেয়ে থাকি মন্ত্র মুগ্ধ ওই  কৌতুক !
হয় তো ক্ষণস্থায়ী সে দিয়ে যাবে 
কিছু রফু জাতীয় স্বপ্নের তাপ্পি 
রজনীগন্ধার গুচ্ছ, আতরের শিশি 
বদলে হয় ত তার চাওয়া অশেষ 
দেহের ভিতরের পৃথিবী তার 
অদেখা, সে দেখতে চাইবে ও না,
ওই ভূমি হলো দেবদাসীর জগত 
দেবতার ছাড়া প্রবেশ যেন নিষিদ্ধ,
সে পুরোহিত হতে চায় শুধু 
দক্ষ পতঙ্গ কি আগ্নেয় গিরি কিংবা 
হাসির সম্মোহনে খেলতে চায় 
আদিম আঁধারের খেলা, তার এই 
ছদ্মবেশী  রূপ করে আতঙ্কিত 
আমি চেয় ও হাসতে চাই না কোনো 
ভাবে, যে যায় ফিরে যাক -
-- শান্তনু সান্যাল  


Monday, 27 June 2011

ফিরে আসা

সে খুলে নি অতীতের গ্রন্থী -
বেদনার প্রতিচ্ছায়ায় সুপ্ত ছিল
বহু আহত স্বপ্নের অংশ ছড়ানো,
বিশুষ্ক কুসুমবৃন্ত, ঘনীভূত অশ্রু
ক্ষয় গ্রস্ত হাসির নীচে ছিল গোপন
জীবনের সত্যতা, চোখের ভাষা
বলে গেছে বিপুল মনের গভীরতা !
দেখিছি জীবনে প্রথম তার মৌন
প্রশান্ত, দিপ্তিবিহীন মুখে শ্রাবনের
ছায়া,এক লয়ে আকাশে চাওয়া,
মোমের আলোয় সে হয় উঠি নি
গোলাপ, হয় তো  মনের কাননে
আর ফুটে না ভাবনার প্রসুন -
খুঁজে চলেছে সে যেন কিছু অশেষ
ভালবাসা, দেখি সে সজল নয়নে
হারিয়ে গেছে প্রাচীন জাদুঘরে
স্বপ্ন গুলো মামি, ছুঁতে চায় মন
পূনর্জীবনের আশায় কাচের পুতুল,
সহসা দুর্বল একটি হাত, বেড়ে
আসে বুকের কাছে, রিক্ত করতল
কি চায় পয়সা অথবা প্রজাপতি
বোঝা খুবই মুশকিল, সে ফিরে
আসে সম্প্রতি যুগে, একাকী উদাস,

-- শান্তনু সান্যাল

Saturday, 25 June 2011

কোথায় যেন আমিও রয়েছি

অভিশপ্ত পাষাণে লাগি নি আজ ও 
চরণ ধুলি,অহিল্যা হয় উঠি নি 
ক্ষয় গ্রস্ত জীবনের বহু অঞ্চল,
ওরা ছিল হয় তো অন্য গ্রহের 
মানুষ,হা করে  সমানে দেখে রয় 
ছেঁড়া আঁচলে দুগ্ধ গ্রন্থী,
কাঁচের সন্দুকে  স্বপ্ন গুলো 
উলঙ্গ সুয়ে রয়েছে রসে ডূবে 
খোলা গায়ে পরিত্যক্ত  শিশু 
বিস্ময়ে  চেয়ে থাকে  গোল সকাল 
স্থির  দাড়িয়ে  চিন্তামগ্ন, চকের 
ষাঁড়, চিবিয়ে চিবিয়ে ভেবে চলেছে 
রাত্রি র ষড়যন্ত্র,গুঁতোর ভয়ে পাস 
কেটে হাঁটছে সাঁঝ, বড়ই ভদ্র লোক 
উর্দিওয়ালা  নেকড়ে বাঘ  মধ্য রাতে 
গন্ধ শুঁকে বেড়ায়,স্টেশনে,পার্কে 
কি  ভাবে  চুষবে  কঙ্কালের  লেপ্টানো 
ক  এক  বিন্দু  রক্ত,মাংস,মজ্জার 
রেষা , বিভত্স  স্বপ্নের  মাঝে 
কিছু  ঘুমিয়ে মন হয় উঠে 
ঘোলাটে  সূর্যের  মরা  রশ্মি ,উড়ান 
সেতুয়ে  আবার  বেগবান  জীবনের 
রেখাচিত্র   দৌড়িয়ে  চলেছে  অনন্ত 
পথে, ফুটপাথের  নেড়ি কুকুরগুলো 
এখনো গুটিয়ে ঘুমোতে  চায়, এক  চোখ 
খুলে, নোংরা  থলির বাহিরে  উঁকি 
দিয়ে  চলেছে পুই  ডগার কচি পল্লব 
বৃদ্ধ  ভাবনা লুঙ্গি উঠিয়ে খুবই 
কষ্টে উঠতে  চায়  তেতলায়,সিঁড়ির 
ঠিক  নীচে জীবন রয়েছে আজ ও 
ময়লা,দুর্গন্ধে ভরা,বিশ্রী,ফেলানো
তোষক,বালিশ,মাদুরতেলেপোকা 
কোথায় যেন আমিও রয়েছি 
হয় ত এখানেই আসে পাসে, যান উঠে 
যান ডিঙিয়ে যে ভাবে পারেন -
-- শান্তনু সান্যাল  

Friday, 24 June 2011

ফড়িং দল

নির্জলা নদীর বুকে লিখেছিলে কাহিনী 
ফাগুনের তপ্ত দুপুরে,সে কি আছে 
আজ ও সেখানে, শ্রাবনের ধারায় শুনি 
তার ভেসে যাওয়ার সুপ্ত বেদনা ,
বর্ষণের বিভিশিখায়ে কেঁপে উঠে 
দুই কুলের মাটি,পাথর,জীবনের কিছু 
পরিত্যক্ত নৌকা,ঘাটের সিঁড়ি 
সারঙ্গের ডাকে আর হৃদয় কি সজল 
হয় উঠে সাঁঝ নামার আগে, জানি না 
সে কি এখনো চেয়ে থাকে ধ্রুব তারা  
টেনে যায় আকাশী ধুসর আঁচল
দীর্ঘ নিঃশ্বাসে,দেউল চুড়ার সোনালী 
আভা আস্তে আস্তে ধুমিলের পথে 
হয় ত নিভে চলেছে সূর্যের আলো সুদূর 
পাহাড়ের আদিম গুম্ফায়ে 
রাত্রি বিকরাল রূপে কিছু ক্ষনেই চেঁপে 
ধরবে গ্রীবা হইতে কটিবন্ধ 
ওই কাহিনীর পাত্রগুলো একে একে 
হাঁটবে, লাফাবে,ছিন্ন ভিন্ন করে যাবে 
মনের উর্বর ভূমি,অনাবৃষ্টির রূপে,ফড়িং 
দল হয় ত উড়ে যাবে শেষে 
ভোর কোনদিনই চিনতে পারবে না 
কঙ্কালনি সেই ভালবাসা !
-- শান্তনু সান্যাল



 




অস্তাচলের সাথী 
যারা ছিল খবরের শিরনাম এক দিন

কালান্তরে গেছে হারিয়ে অমুদ্রিত প্রান্ত 
দেশে, এখানে সূর্যোদয়ের জন্য প্রীতি 
শুভেচ্ছা,অর্ঘ্য,পুষ্পমালা,যারা গেছে 
ডুবে পশ্চিমের সাগরে, দেখো যদি 
খুঁজে পাও অতীতের ছেঁড়া পৃষ্ঠে, 
পৃথিবীর পাক খোলা অবিচলিত এক 
ব্যাপক মৌন প্রক্রিয়া, কত জন যে 
পার হলো ভবসাগর সে এক ভিন্ন কথা !
বলে ছিল সে এক দিন আসবে নিয়ে 
কিছু ভোরের স্বপ্ন,বেঁচে থাকার মূল্য 
কই,বসে আছি অনন্ত পথ চেয়ে,দেহে 
নিয়ে ঝরানো ঘা, হৃদয়ের ছিন্ন তন্তু 
কিছু বিধ্বস্ত স্মৃতির আবছা আলো,ওই 
পথে নাকি রাত্রির আভাস হয় না, 
চাঁদ উঠুক বা না উঠুক,সর্বদা উদ্ভাবন 
সেই প্রদেশ,হয় ত মায়াবিনী রাতে 
অবিকল বন্ধু পায়ে না খুঁজে নিজের 
ঠিকানা,কেমন করে মনে রাখবে বিগত 
পথের অন্ধ গলি, নোংরা গন্ধ, উদাস - 
চেহারা, শ্লেষ্মা ভরা বুকের ভালবাসা !
--- শান্তনু সান্যাল