Monday, 11 April 2011


ঘুমন্ত উপত্যকা 




নিশাচর পাখি, শিষের পুনারাবৃতি -
উচ্চ তরু শাখা,অনুরণন ভেঙে যায় নিস্তব্ধতা
ঘুমন্ত গভীর উপত্যকা, জ্যোত্স্না ভরা আচ্ছাদন
বাঁধে মন প্রণয়ের সেতু, অলিন্দে হইতে দেখি
সুদরে ছাড়ানো ছোট্ট স্বর্গ যেন ভেসে যায়
অন্ধকারে,রাত্রি পূর্ণতার দিগে -
 অভিলাষার শিশু খেলে হারানো প্রাপ্তির খেলা
মেঘেরা ছুঁয়ে যায় পাহাড়ের শীর্ষ, কুয়াশার ঢেউ
উদ্বিগ্ন, আদ্র ভাবনারা চায় আশ্রয়
তুমি নিঃশব্দ, নিমগ্ন চেয়ে আছো, গাছের
 রুক্ষ কান্ড খানি, জোনাকিদের সর্পিল খেলা
দীর্ঘ নিঃশ্বাস, প্রবল ঝড়ের পূর্বাভাস -
ঝিমন্ত চোখে লুকানো প্রণয়ের আন্দোলন !
আবেগের গর্ভে স্বপ্নের সাগর মন্থন
সুমেরু প্রান্তরে হিমের বিঘলন
নীলাভ আকাশে চাঁদের বিহ্বলতা
সুদূরে বিহানের পথ চাওয়া, আমি শুধুই তোমার
এই অপরূপ রূপ দেখে যাই -----
- শান্তনু সান্যাল 

জীবনের যজ্ঞ


পাহাড়ের ব্যথা অবুঝ,অপরিভাষিত

নীলের গভীরতা ঘনিয়ে আনে রহস্য
চোখের অনুমান চির দিন কি 
প্রকৃত সত্য
নিঃশ্বাসের লেখচিত্র লিখে যায় কুয়াশা

হৃদয়ের সমীপে তোমার আবছা উপস্থিতি 
ভাবনার কম্পন, বন্য নদীর আন্দোলন
দ্বিধা গ্রসিত মনোভাব, অনিদ্রিত রাত্রি
হৈমন্তী সমীরণ, পিঙ্গল প্রণয় পত্রাবলী ঝরে
আকাশ হইতে, তিমিরময় হৃদির ভূমি
স্মৃতি কপাট খোলা রয় সারা রাত, চেয়ে
থাকে সংবেদনা, ফিরে যায় কার পদধ্বনি
ধীরে ধীরে,পাহাড় হয় উঠে তাম্র বরণী
আগুনে তপ্ত ভালবাসা,ডাকে শ্রাবনের ধারা
নিশি যায় ফুরায়ে, মেঘবিহীন নীলাম্বর
নিষ্ঠুরতার সঙ্গে করে প্রভাতের সংরচনা
রক্তিম ক্ষিতিজ, বলিবেদির দিগে অগ্রসর
পুনঃ পুনঃ জীবনের যজ্ঞ হয় উঠে জাগৃত !
-- শান্তনু সান্যাল