Friday, 4 February 2011

জীবনের সার্থকতা


জীবনের সার্থকতা 
প্রথিবী জুড়ে রয়েছে শোক, বিলাপ, বিষন্নতা 
জীবনের এই উধ্বস্ত পরিমন্ডলে কিছু ক্ষণ যদি 
তার সমীপে স্বপ্ন ঝিনুক কুড়িয়ে যাওয়া, ক্ষতি 
কী?জানি প্রেম ও নিয়ে যায় অদৃশ্য ধ্বংসের 
মুখে,কিন্তু অবুঝ হৃদয় মরিচিকার ভাষা বুঝে 
না,ব্যাধের তীরে গরল আছে কি সুধা,মায়া মৃগ 
সুকরাত কিংবা সিদ্ধার্থের পরিচয় জানে না, সে 
নিসর্গের সাথী,শ্রাবণের ধারায়,মধুমাসের মৌন
আমন্ত্রণে,পলাশের রক্তিম প্রবাহে কেবল ভাসতে 
জানে,অরণ্য বিথিকায় কস্তুরীময় গন্ধে নিজের 
জীবন হারিয়ে দিতে চায়,এই চরম উতসর্গ বিন্দুই 
ত প্রেম,প্রণয়ের পথের যাত্রি, কখনো রাধার অশ্রু-
ধারা,আবার যাযাবরসম বাউলের ওই একতারা !
  কান্না ও হাসির মাঝে, অনাবৃষ্টি ও বর্ষণের মধ্যে 
তার দুই চোখের বৃষ্টিছায়ার ভূমিতে, হৃদয় দেখে -
যায় বেঁচে থাকার স্বপ্ন,পুঁতে যায় নব পুষ্প চারা ! 
--- শান্তনু সান্যাল      

হারানো পথে


হারানো পথে 
ওই নীল সবুজের নিঃশর্ত মিলন, সাঁঝের যবনিকা
টেনে, অশেষ গভীরতায় অগাধ ঘুমে হারানো !
পীত বরণী শশী উঠে আসে সরিয়ে নিঝুম উর্মির
প্রবাহমান বাহুপাশ, আমি চেয়ে রই শুধুই তোমায়.
এই জামীরা অন্ধকারে জোনাকিরা চুরি করে যায় 
তোমার নয়নতারার গোপন মিষ্টি আলো কণিকা, 
ভাশ্যময়ী এই অন্তরঙ্গতা ভরে রয় জীবনে জোছনা,
মনে হয় কত শতাব্দী ধরে তুমি জড়িয়ে রয়েছে -
একান্ত লয়ে হৃদয়ের সুক্ষ্ম, কোমল স্নায়ুতন্তু খানি, 
জলধির নিস্তব্ধ জলরাশিময় স্বরলিপি লিখে যায় -
আমাদের প্রণয়ের সংগুপ্ত গানের আরোহঅবরোহ,
যুগল অধরে থেমে রয় পৃথিবীর মধু আবর্তন.
আকাস্মিক ভাবে তোমার আলিঙ্গনে মিশে যাওয়া 
দেখি চন্দ্র হেঁটে চলেছে নভে, মেহেন্দি ভরা পায়ে !
কম্পিত সমীরণে মহুয়া গেছে ঝরিয়ে অহংকার 
কিংবা আবেশের লাগি গেছি মোরা সমস্ত পথ ভুলে ?
--- শান্তনু সান্যাল